৩৫ বছরের মেয়েকে বিয়ে করলেন ৭০ বছরের বৃদ্ধ প্রফেসর

মাসুদ রানা,মোংলা

আপডেট : ০৫:২৪ পিএম, বৃহস্পতিবার, ২৩ মার্চ ২০২৩ | ১৪৮৫

বয়সটা কোন ব্যপারনা যদি সেখানে থাকে বিশ্বাস এবং আস্থা। (৭০) বছর বয়সে এসে বাগেরহাটের মোংলার ৩৫ বছরের মেয়ে শাহেদা বেগম নাজুকে বিয়ে করে চিরকুমারত্বের অবসান ঘটিয়ে বিয়ে করেছেন তিনি। জাক জমক ভাবে শনিবার (১৮ মার্চ) বিয়ের পিড়িতে বসেন রামপাল উপজেলার জিগিরমোল্লা গ্রামের মৃত নওশের আলীর পুত্র আলহাজ্ব হাওলাদার শওকত আলী।
১০ লক্ষ ১ টাকা দেন মোহরানায় নগদ পাঁচলক্ষ টাকা উসুলে স্থানীয় গণামান্য ব্যক্তি ও দুই পরিবারের লোক জনের উপস্থিতে এ বিবাহ সম্পন্ন হয় ।
বরের পরিবার ও স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, দীর্ঘ বাগেরহাটের রামপাল সরকারি কলেজে প্রফেসর ছিলেন বর শওকত আলী। অবসরে আসার পর বর্তমানে নিজে অনেকটা একাকিত্ব বোদ করছেন। এক সময় পরিবারে হাল ধরতে এবং ভাই বোনদের মানুষ করতে গিয়ে সংসার করা হয়ে ওঠেনি তার। জীবনের মূল্যবান সময় তিনি শিক্ষকতা, ভাই বোন ও সমাজ সেবায় ব্যায় করেছেন। তাকে বিয়ের কথা বলা হলেও সে কখনো বিয়ে করতে রাজি হচ্ছিলনা। সে সারা জীবন চিরকুমার থাকবেন বলে জানাতেন।
বরের নিকটাত্নীয় আঃ হালিম খোকন জানান, সে আমাদের বড়ো ভাই, আমরা তার কাছে মানুষ হয়েছি, সারাটা জীবন সে আমাদের সুখে দুঃখে বটবৃক্ষের মতো আগলে রেখেছেন। বর্তমানে আমরা নিজেদের নিয়ে কর্ম এবং ব্যাবসার কাজে ব্যাস্ত থাকি যার কারনে আমাদের বড়ো ভাই অবসরে আসার পর অনেকটা একাকিত্ব বোধ করছিলেন। তার এই একাকিত্ব দুর করতে ও দেখভাল করতে এ সময় তার একজন সঙ্গিনী খুবই দরকার। তাই আমরা তাকে বিয়ের জন্য চাপ প্রয়োগ করলে সে একটা সময় এসে রাজি হয়। পরে মোংলা উপজেলার মিঠাখালি ইউনিয়নের এক কন্যা সন্তানের জননী (বিধবা) শাহিদা আক্তার নাজুর (৩৫) সাথে বিবাহ সম্পন্ন করি।
কনের আগের সংসারের মেয়েটার দায়িত্ব আমার বড়ো ভাই আলহাজ্ব শওকত আলী নিয়েছেন। তারা বর্তমানে সুখে শান্তিতে সংসার করছেন। পরিবারসহ নতুন বর এবং কনে আগামীতে হজ্বে যাবেন আপনাদের মাধ্যমে দেশ বাসির কাছে নতূন এই দম্পত্বীর জন্য দোয়া কামনা করেন খোকন।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত