‘অশ্রাব্য গালাগালি ও হুমকিতে গোটা পরিবার ভীত সন্তস্ত্র’

চিতলমারীতে কেন্দ্রীয় নেতা ভগোর বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন 

চিতলমারী প্রতিনিধি

আপডেট : ০১:৫৬ পিএম, শনিবার, ২৩ মার্চ ২০২৪ | ১২২

‘প্রাণ কৃষ্ণ দত্ত ভগো একটি রাজনৈতিক দলের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা। ওই পদ ভাঙিয়ে সে দলিল লেখক ও হিন্দু বিবাহ রেজিস্ট্রার হয়েছে। তার বিরুদ্ধে অবৈধ ভাবে নাবালিকা বিয়ে দেওয়ার একাধিক অভিযোগ রয়েছে।

এছাড়া সে একজন দলিল লেখক হয়েও দলিলের প্রতি তার চরম অশ্রদ্ধা। বর্তমানে তার অশ্রাব্য গালাগালি ও হুমকি ধামকিতে আমরা গোটা পরিবার ভীত সন্তস্ত্র হয়ে পড়েছি। কারণ ভগোর পরিবাররে সদস্যরা চরম অসামাজিক ও বর্বর প্রকৃতির মানুষ।’ শনিবার (২৩ মার্চ) বেলা ১২ টায় এ সব অভিযোগ তুলে ধরে বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছেন সদর বাজারের ব্যবসায়ী ও বাসিন্দা দিবাকর সাহা (৩৫)।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করে তিনি জানান, তার বাবার নাম দিলীপ সাহা। তাদের প্রতিবেশী মৃত-নিত্য গোপাল দত্তর ছেলে প্রাণ কৃষ্ণ দত্ত ভগো বাংলাদেশ কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা। সেই প্রভাব খাটিয়ে সে দীর্ঘদিন ধরে দিবাকরদের সাথে জমি নিয়ে অযথা বিরোধ করে আসছে। ভগোর এবং দিবাকরের জমি দুটি ভিন্ন দাগ। তারপরও ওই নিয়ে এ পর্যন্ত ২ দফা সালিস বেঠক, ৪ বার জায়গা পরিমাপ ও দুইবার চুক্তিনামা হয়েছে। সে মোতাবেক দুইজনের অর্থায়নে একটি যৌথ দেওয়াল নির্মান করা হয়। কিন্তু নোটারী পাবলিকের মাধ্যমে চুক্তি করেও সেই চুক্তি ভগো দত্ত মানেন না। হয়রানী ও নির্মানাধীন দোকানের কাজ বন্ধ করতে সে দিবাকরের নামে নানা দপ্তরে সাজানো মামলা ও অভিযোগ দায়ের করেছেন। ব্যবসায়ী দিবাকর সাহা প্রাণ কৃষ্ণ দত্ত ভগোর হাত থেকে পরিত্রাণ পেতে আইন-শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষে সহযেগিতা কামনা করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে এ সময় উপস্থিত ছিলেন দিবাকরের বাবা দিলীপ সাহা মা করুণা সাহা।

এ ব্যপারে জানতে চাইলে প্রাণ কৃষ্ণ দত্তো ভগো বলেন, ’দিবাকরের যা ইচ্ছা তাই করুক। তাতে আমার কোন আপত্তি নেই।’


তবে প্রাণ কৃষ্ণ দত্তো ভগোর ভাইপো চিতলমারী উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আনন্দ লাল দত্ত বলেন, ‘ওই জায়গা নিয়ে দিবাকর আদালতে ১০৭ ধারা ও আমার চাচা ভগো দত্ত ১৪৪ ধারায় মামলা করেছেন। আপনারা বিষয়টি যাচাই-বাছাই করে লেখেন।’

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত