‘ওপরে ফিটফাট ভেতরে সদরঘাট’- ক্ষতিগ্রস্থ বিদ্যালয়ের শিক্ষার পরিবেশ

নবপল্লী আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক কর্মচারীদের দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে

স্টাফ রিপোর্টার

আপডেট : ০৭:৩২ পিএম, রোববার, ৩ এপ্রিল ২০২২ | ৫৫০

বাগেরহাট সদর ও চিতলমারী উপজেলা সীমান্তের রায়গ্রামে এই বিদ্যালয়টির অবস্থান। বিদ্যালয়টি দেখতে ‘ওপরে ফিটফাট ভেতরে সদরঘাট!’ রায়গ্রাম নামের মতোই সেখানের মানুষেরা যেন নিজের রায়ের ক্ষেত্রে অনঢ়! ব্যক্তিস্বার্থ বেশি গুরুত্ব পেলে সমাজের কল্যাণ আনা কষ্টকর। জেদ বজায় রাখতে গিয়ে সবার জন্য কল্যাণকর যৌক্তিক বিষয়গুলো হারিয়ে যায়।

এমন সুন্দর কথা যে এলাকার লোকেরা বলেন, সেই রায়গ্রামের নবপল্লী আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শিবপদ মজুমদার ও সহকারী শিক্ষকদের মধ্যে দ্বন্দ্ব এখন প্রকাশ্য রূপ নিয়েছে। শিক্ষকদের দ্বন্দ্বে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে প্রত্যন্ত অঞ্চলের এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি। এ ব্যাপারে সহকারী শিক্ষক ও প্রধান শিক্ষকের পরস্পর বিরোধী বক্তব্য পাওয়া গেছে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শিবপদ মজুমদার জানান, অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বে বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষক হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর প্রদান করছে না। ফলে বিদ্যালয়ের একাডেমিক স্বীকৃতি নবায়ন, অডিটসহ বিভন্ন ধরণের কাজে জটিলতার সৃষ্টি হয়। এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি নিরাপদ অধিকারীকে একাধিকবার অবগত করা হয়। এ ঘটনার জেরে গত ২৪ মার্চ বিদ্যালয় আমার কক্ষে বসে প্রশাসনিক কাজ করার সময় আকষ্মিকভাবে সহকারী শিক্ষক আল মামুন, চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী কৃষ্ণপদ মজুমদারসহ কয়েকজন হামলা চালিয়ে কক্ষের দরজা, সিসি ক্যামেরা, এমপি মহোদয়ের ছবি ভাংচুর করে। একইসাথে তাকে লোহার রড দিয়ে শারিরীক ভাবে লাঞ্চিত করে। বিষয়টি তিনি তাৎক্ষনিক ভাবে সদর ইউপি চেয়ারম্যান শেখ নিজাম উদ্দীনকে জানিয়ে চিতলমারী থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেণ। বর্তমানে তিনি বাড়িতে প্রাথমিক চিকিৎসায় আছেন।

বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষকরা জানান, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শিবপদ মজুমদার দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন অজুহাতে শিক্ষক কর্মচারীর কাছ থেকে দফায় দফায় কয়েক লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়। ভুয়া এমপিও’র অনুমোদন কপি তৈরি, ভুয়া এমপি শীট তৈরি, শিক্ষকদের খাতা আটকে রাখাসহ বিভিন্ন ধরণের দুর্নীতি করে আসছেন। একই সাথে গত দুই মাস ধরে শিক্ষকদের এমপিও বন্ধ রেখে কৌশলে প্রধান শিক্ষক তার নিজের বেতন-ভাতা তুলে নিয়েছেন। এ বিষয়ে শিক্ষকদের পক্ষ থেকে কয়েক বার প্রধান শিক্ষক বেতন ভাতা প্রদানের ব্যবস্থা করার জন্য অনুরোধ করা হলেও তিনি কারো কথায় কর্ণপাত করছেন না। সর্বশেষ তিনি গত ১০ দিন ধরে বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত রয়েছেন। ফলে বিদ্যালয়ের সার্বিক শিক্ষার পরিবেশ ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে।

বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি নিরাপদ অধিকারী বলেন, প্রতিষ্ঠানেরর প্রধান শিক্ষকের সাথে বিভিন্ন বিষয়ে সহকারী শিক্ষকদের দ্বন্দ্ব দীর্ঘদিনের। বিদ্যালয়ের চলমান বিভিন্ন সংকট সমাধানকল্পে আশু পদক্ষেপ গ্রহন করবেন বলে তিনি জানান।

এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ মফিজুর রহমান জানান, নবপল্লী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে লাঞ্চিত করার বিষয়ে তিনি কোন লিখিত অভিযোগ পাননি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

চিতলমারী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এ এইচ এম কামরুজ্জামান জানান, নবপল্লী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শিবপদ মজুমদারের কাছ থেকে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত