ফকিরহাটে উদ্ধার হওয়া বিপুল পরিমাণে  সরকারী জায়গা আবারও বেদখল

ফকিরহাট প্রতিনিধি

আপডেট : ১০:৪৪ পিএম, মঙ্গলবার, ১৪ মে ২০২৪ | ৯৫

ফকিরহাটে সরকারী খাস জমি উদ্ধার করে ইউনিয়ন ভুমি অফিস নির্মাণের পরিকল্পনা ভেস্তে যেতে বসেছে উপজেলা ভুমি অফিসের। ফলে স্থানীয় জনগণের মাঝে বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সৃস্টি হয়েছে। দ্রুত বেহাত হওয়া সরকারী জমি উর্দ্ধার ও দখল করে সাইন র্বোড টাঙ্গানো ব্যক্তির বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহন করার জন্য জেলা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়েছে।


জানা গেছে, উপজেলার লখপুর ইউনিয়নের খাজুরা বাসস্ট্যান্ডের পার্শ্বে ০.৬৬ একর সরকারী জমি দীর্ঘদিন যাবৎ একটি চক্র ভোগদখল করে রেখেছিলেন। সেই জমিটি (২৩(৪) ধারার বিধানমতে মিস-১০৭/২০২৩নং কেস মুলে ১নং খতিয়ান ভুক্ত করা হয়) মৌজা ৪৩নং খাজুরা খতিয়ান নং-০১ (বিআরএস) দাগ নং এসএ-৬৫১, বিআরএস-৮৮৪, ৮৮৫, ৮৮৮, জমির পরিমান-০.৬৬ একর। সেই জমিটি গত ১৬ই জানুয়ারী-২০২৪ ইং তারিখ মঙ্গলবার সকালে তৎকালিন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) এম আব্দুল্লা ইবনে মাসুদ আহম্মেদ সরেজমিনে পরিদর্শন করে সেখানে লখপুর ইউনিয়ন ভূমি অফিস নির্মাণের জন্য নির্ধারিত স্থান হিসাবে গণ্য করেন এবং একটি সাইন বোর্ড স্থাপন করেন। এসময় তাঁরা সাথে আরো উপস্থিত ছিলেন, লখপুর-বাহিরদিয়া ও খড়রিয়া ইউনিয়ন সহকারী (ভুমি) কর্মকর্তা মোঃ জাকির হোসেন, সার্ভেয়ার মোঃ তোফাজ্জল হোসেন ও ইউপি চেয়ারম্যান এম,ডি সেলিম রেজা সহ স্থানীয় বিভিন্ন গণমান্য ব্যক্তিবর্গ। পরে গত ৯ই মে-২০২৪ইং তারিখ গভীর রাতে ভুমি অফিসের টাঙ্গানো সাইন র্বোডটি উঠিয়ে ফেলে সেখানে নতুন একটি সাইন র্বোড টাঙ্গিয়ে দেওয়া হয়। যা নিয়ে স্থানীয় জনগণের মাঝে বিরুপ প্রতিক্রিয়ার সৃস্টি হয়েছে।


এব্যাপারে লখপুর-বাহিরদিয়া ও খড়রিয়া ইউনিয়ন সহকারী (ভুমি) কর্মকর্তা মোঃ জাকির হোসেন এর সাথে আলাপ কালে তিনি জানান, গত কয়েকদিন আগে কে বা কারা সরকারী সাইনবোর্ডটি রাতে চুরি করে নিয়ে যাচ্ছিলো তখন পাশ^বর্তী বসবাসকারী মৃত ওয়াজেদ আলী মোড়লের মেয়ে রাশিদা বেগম দেখে চিৎকার দিলে সাইনবোর্ডটি ফেলে চোর পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে ০৯ মে, বৃহস্পতিবার সকালে আমি উক্ত সাইনবোর্ড পূনরায় স্থাপন করে আসি। তখন জনৈক মিজানুর আলম আমাকে ধমকান এবং বলেন যে, রাতের মধ্যেই ওই সাইনবোর্ড হাওয়া হয়ে যাবে। পবর্তীতে শুক্রবার দুপুরের দিকে জানতে পারি যে, আমাদের সরকারী সাইনবোর্ডটি ফকরুল আলম ও মিজানুর আলম গং চুরি করে তাদের নাম সম্বলিত একটি সাইনবোর্ড স্থাপন করে জমির মালিকানা দাবি করেন। মূলত এরা জালজালিয়াতি কাগজপত্র তৈরি করে দীর্ঘদিন যাবৎ এ জমি দখলের পায়তারা করে আসছে বলেও তিনি জানান।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত