মোংলা পশুর নদীতে ছয় হাজার বস্তা সরকারি চাল নিয়ে বাল্কহেড ডুবি

মাসুদ রানা, মোংলা

আপডেট : ১২:৩২ পিএম, সোমবার, ১ এপ্রিল ২০২৪ | ৮৮

পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষ্যে গরীব অসহায়দের জন্য আনা ছয় হাজার বস্তা সরকারি চাল নিয়ে 'এম ভি সাফিয়া' নামে একটি বাল্কহেড জাহাজ ডুবির ঘটনা ঘটেছেছ। রবিবার (৩১ মার্চ) দুপুরের পর মোংলা বন্দরের পশুর নদীর ত্রি-মোহনায় এসে বাল্কহেডটি পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা 'এমভি শাহাজাদা-৬' নামে অপর একটি লাইটার জাহাজ পিছন থেকে ধাক্কা দিলে এই দূর্ঘটনা ঘটে। তবে এসময় কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি, জাহাজে থাকা ৫ নাবিক অক্ষত অবস্থায় জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। এদিকে ধাক্কা দেওয়ার অপরাধে 'এভি শাহাজাদা-৬' নামের লাইটার জাহাজটিকে এদিন সন্ধ্যায় আটক করেছে নৌ পুলিশ। মোংলা নৌ পুলিশের অফিস ইনচার্জ এস আই সৈয়দ ফকরুল ইসলাম রাত ১০ টার দিকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।


নৌপুলিশের অফিস ইনচার্জ সৈয়দ ফকরুল ইসলাম বলেন, ঈদ উপলক্ষ্যে গরীব অসহায়দের জন্য রবিবার (৩১ মার্চ) সকালে খুলনার সরকারি খাদ্য গুদাম থেকে ছয় হাজার বস্তায় ১৭৫ মেট্রিক টন সরকারী চাল নিয়ে মোংলা খাদ্য গুদামের উদ্দেশ্য ' এমভি সাফিয়া' নামে চাল বোঝাই একটি বাল্কহেড জাহাজ ছেড়ে আসে। ৩১ মার্চ দুপুরের পর বাল্কহেডটি মোংলা বন্দরের পশুর নদীর ত্রি-মোহনায় এসে পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা এমভি শাহাজাদা-৬ নামে অপর একটি লাইটার জাহাজ পেছন থেকে ধাক্কা দিলে সরকারি চাল নিয়ে ডুবে যায় বাল্কহেড জাহাজ 'এম ভি সাফিয়া' জাহাজ। তবে এসময় বাল্কহেড জাহাজে থাকা পাঁচজন নাবিক দ্রুত সাঁতরিয়ে কূলে উঠলে প্রাণে বেঁচে যান তারা।

এ ঘটনায় এভি শাহাজাদা-৬' নামের লাইটার জাহাজটিকে বঙ্গবন্ধু মোংলা ঘষিয়াখালী নৌ ক্যানেল থেকে রবিবার সন্ধ্যার পরে আটক করা হয়েছে বলেও জানান মোংলা নৌ পুলিশের দায়িত্বরত কর্মকর্তা সৈয়দ ফকরুল ইসলাম।

রাত সাড়ে ১১টায় শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ডুবে যাওয়া বাল্কহেড জাহাজ থেকে চাল অথবা ডুবন্ত জাহাজটির উদ্ধার কাজ শুরু হয়নি, তবে সোমবার (১ এপ্রিল) সকাল থেকে সরকারি চাল উঠানো ও ডুবন্ত বাল্কহেডটি উদ্ধার কাজ শুরু করা হবে বলেও জানায় নৌ-পুলিশের এ কর্মকর্তা।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
  • নির্বাচিত